বঙ্গ জননীর অপমান

হে বঙ্গজননী,
যাহারা তোমায় করেছে অপমান
তাহাদেরও হতে হবে অপমানে সবার সমান।

তোমার চলার পথে দিয়ে গেছে যারা বাঁধা,
তাহাদেরও কভু হবে নাকো বিধির আইনে ছাড়া।

তুমি চলে গেছো দূর হতে দূরে
আসবেনা ফিরে বাঙলার পরে।
কেবলই তোমার একটি দীর্ঘশ্বাস
তাহাদের দ্বারে নামাবে অভিশম্পাত।

যাহারা তোমার রুধিল প্রাণেরশ্বাস
পঙ্গুকরিল দেহের মাংসখন্ড আঁশ
তাহাদের উপর পড়িবে বিধাতার রুদ্ররোষ।

কাঁপিছে থর থর এ ভূধর
তোমার রক্তে নাচে পাঁজর।
পাষন্ড মানব হৃদয়
তোমার অঙ্গের আভরণ খুলে
জীবন মৃত্যু তুচ্ছ করে
বঞ্চিত করেছে মানুষের অধিকারে
ধরণীর বুকে দিলে নাই স্থান
তাহাদেরও হতে হবে অপমানে সবার সমান।

ঠেলে দিলে যাহারা তোমার আসন হতে দূরে স্থিরতার চির-অন্তঃপুরে
নির্বাসন দিলে অবহেলে ঘোর অন্ধকারে
কি যন্ত্রনায় মেরেছে জিভ কেটে ছুরিকাঘাতে
জ্বলে দুঃখের অগ্নিশিখা
দুঃসহ ব্যাথা হয়ে অবসান
তাহাদেরও দিতে হবে প্রাণ সবার সমান।

যাহারা তোমারে টানিয়া ফেলিল নীচে
সর্বহারাদের মাঝে, সংগোপনে
সবার নীচে বিষম অপমানের তলে
বক্ষ মাঝে জড়ায়ে অভিমান
তাহাদেরও হতে হবে অপমানে সবার সমান।

যাহারা তোমার বিষাইলো বায়ু,
কাড়িয়া নিলো তব প্রাণ
করিয়া অসম্মান, রচিয়া ঘোর ব্যাবধান
গৃহছাড়া করে ছিন্ন করিয়া সব মায়ামমতা-বন্ধন
ধুলায় নেমেছে অসহায় দীনহীনদের ভগবান
মূক্তি নাইরে, নাহিরে পরিত্রাণ
তাহাদেরও হতে হবে অপমানে সবার সমান।

আপনার মতামত

avatar
  Subscribe  
Notify of